মিষ্টি আলুর সালাদ

শরতের দিনে লাঞ্চ বা সাইড ডিশ হিসেবে আপনার ম্যেনুতে রাখতে পারেন এই ভাজা মিষ্টি আলুর সালাদ। এটিকে আরও সুস্বাদু করে তুলবে ফেটা চীজ, অ্যাভোকাডো বা তাহিনির ড্রেসিং  এর সাথে ।

আশা করছি, আপনারা সবাই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন আমার এই রেসিপির জন্য! শরতের নানা রকম সালাদ রেসিপির মধ্যে প্রথমেই নিয়ে আসলাম এই মিষ্টি আলুর সালাদের রেসিপি। সালাদ তো সারা বছরই খেতে ভালো লাগে, যেমন প্রচণ্ড গরমের দিনে টমেটোর সালাদকে কেউ না বলতে পারবে না। কিন্তু শরতের সময় সালাদগুলো ভিন্ন স্বাদের হয়। গ্রীষ্মের মিষ্টি ফল আমরা শরতকালে খাই না, তাই বেছে নেই মিষ্টি স্বাদের শর্করাযুক্ত সবজি, যেমন মিষ্টি আলু বা মিষ্টি কুমড়া।  কয়েক মাস টমেটো এবং ভুট্টায় ভরা পাতাবিহীন সালাদ খাওয়ার পর আমি পালং শাক, আরগুলা বা কেইল পাতা ভর্তি এক বাটি শরতের সবুজ শাক ছাড়া আর কিছুই চাই না। একসঙ্গে, শরতের এইসব তাজা সবুজ শাক-সবজি গুলো দিয়ে হালকা এবং পুষ্টিকর সালাদ বানানো যায়, যা খেতেও ভালো লাগে।

মিষ্টি আলুর সালাদ
মিষ্টি আলুর সালাদ

এই ভাজা মিষ্টি আলুর সালাদ রেসিপিতে, আমার প্রিয় অনেকগুলো উপাদান ব্যবহার করেছি। এর মধ্যে আছে আরগুলা পাতা, ফেটা চীজ, মিষ্টি কুমড়ার বিচি (খোসা ছাড়া), অ্যাভোকাডো, তাহিনির ড্রেসিং এবং ভাজা মিষ্টি আলু। এর থেকে ভালো কম্বিনেশন আর কি হতে পারে! ফেটা চীজের টক স্বাদের সঙ্গে ক্যারামেলাইজড মিষ্টি আলু, নরম ক্রিমি অ্যাভোকাডো। আর আরগুলার পাতা পুরো জিনিসটিকে হালকা এবং তাজা করে তোলে । আর তাহিনী ড্রেসিং এই সবকিছুকে একসাথে মিশ্রণ  করে। শরতের দুপুরে উপভোগ করার জন্য, এর থেকে ভালো আর কিছু হতে পারে না।  

মিষ্টি আলুর সালাদ বানানোর উপকরণঃ

ঘরে থাকা সহজ কিছু উপাদান এই মিষ্টি আলুর সালাদ তৈরি করতে পারবেন। নিচে সেগুলো দেওয়া হলঃ 

মিষ্টি আলু- মিষ্টি আলুর সালাদের জন্য আলু তো অবশ্যই লাগবে! আমি আলুগুলো লাল করে ভেজে আধা সিদ্ধ অবস্থায়  তুলে নেই। এতে বাইরের দিকটা দেখতে মুচমুচে হয়।  

আরগুলা পাতা- এই নরম তেতো সবুজ শাকগুলো খেতে আমার দারুণ লাগে! আপনার কাছে আরগুলা না থাকলে, ঘরে থাকা  পালং শাক, কেইল পাতা বা বেবি লেটুস পাতাও এখানে দিতে পারবেন।

অ্যাভোকাডো- এটি এই মিষ্টি আলুর সালাদে একটা ক্রিমি স্বাদ  দেয়। 

মিষ্টি কুমড়ার বিচি (খোসা ছাড়া)- কড়মড়ের  জন্য!

ফেটা চীজ- চীজের টক স্বাদ ক্যারামেলাইজড ভাজা মিষ্টি আলুর সঙ্গে একটা দারুণ স্বাদ দেয়। আপনি যদি নিরামিষভোজী না  হন তবে চীজের বদলে কয়েক টুকরা আচারে  দেওয়া লাল পেঁয়াজ দিতে পারেন।  

তাহিনী ড্রেসিং- এই দুর্দান্ত বাদামের ড্রেসিং সব উপকরণগুলোকে একসাথে করে । তাহিনি সঙ্গে লেবুর রস, ম্যাপেল সিরাপ, জলপাই তেল, তিলের তেল, রসুন, পানি আর লবণ দিয়ে এই অসাধারণ ড্রেসিংটি বানিয়ে নিন।

এই সালাদটি তৈরি করতে, মিষ্টি আলু ভেজে তার সঙ্গে ড্রেসিংটি একসাথে মিশিয়ে নিন। তারপরে একটি বড় বাটি বা থালায় আরগুলা পাতা, ভাজা মিষ্টি আলু, অ্যাভোকাডো,মিষ্টি কুমড়ার বিচি এবং ফেটা চীজ সব একসঙ্গে মিলিয়ে নিন। আরও কিছু ড্রেসিং উপর ছড়িয়ে দিন আর পরিবেশন করুন!

Untitled design 1 1 মিষ্টি আলুর সালাদ

নীচের পরিমাপ সহ সম্পূর্ণ রেসিপি দেখুন

পরামর্শ এবং বিভিন্নতাঃ 

  • সবকিছু একসাথে মিশিয়ে নেওয়ার আগে মিষ্টি আলু ঠান্ডা হতে দিন। ওভেন থেকে বের করে মিষ্টি আলু গরম অবস্থাতেই মিশিয়ে ফেললে আরগুলা পাতা নেতিয়ে যাবে। এইজন্য, সবকিছু একসাথে টেস্ট  করার আগে তাদের ঠান্ডা হতে দিন। তাহলে, খাওয়ার সময়ও আরগুলা পাতা সতেজ থাকবে।
  • একদম শেষ মুহূর্তে ড্রেসিং এবং অ্যাভোকাডো যোগ করবেন। এই রেসিপিটি দুপুরের খাবার খাওয়ার আগে বানালে ভালো হয়। তবে আপনি যদি এটি আগে থেকে তৈরি করে রাখেন, তবে আপনি না খাওয়া পর্যন্ত ড্রেসিং এবং অ্যাভোকাডো আলাদাভাবে সংরক্ষণ করুন। আপনি যদি আগেই ড্রেসিং যোগ করেন, সালাদের উপকরণগুলো ভিজে যাবে। একইভাবে, অ্যাভোকাডো যদি আগেই কেটে ফেলেন তাহলে এটি বাদামী আর তেতো হয়ে যাবে। কিন্তু আপনি যদি শেষ মুহুর্তে এই দুটি যোগ করেন তাহলেই এটি খেতে সুস্বাদু হবে।

ইচ্ছেমতো পরিবর্তন করুন! আমি এই মিষ্টি আলুর সালাদ রেসিপিটি যেভাবে লেখা আছে, সেভাবে বানাতেই পছন্দ করি। তবে আপনি নির্দ্বিধায় এটির সাথে আরও কিছু যোগ করতে পারেন বা বাদ দিতে পারেন!

শুরু করার জন্য আপনাকে এখানে কয়েকটি ধারণা দিচ্ছি:

  • ওভেনে মিষ্টি আলু রাখার আগে মরিচের গুঁড়া দিয়ে মাখিয়ে নিন। সালাদে কালো মটরশুটি, লাল ক্যাপসিকাম, এবং পেঁয়াজ পাতা বা আচার দেওয়া লাল পেঁয়াজ দিতে পারেন। আর তাহিনি ড্রেসিং এর বদলে ধনে পাতা আর লেবুর রসের ড্রেসিং বা মরিচের সস (chipotle sauce) দিতে পারেন।
  • আরও প্রোটিন উপাদান যোগ করুন। মিষ্টি আলু, অ্যাভোকাডো এবং মিষ্টি কুমড়ার বিচি দিয়ে এই সালাদটি এমনিতেই অনেক সুস্বাদু। তবে আপনি যদি এর মধ্যে আরও প্রোটিন যুক্ত করতে চান তবে এক মুঠো ভাজা ছোলা, রান্না করা ফ্রেঞ্চ সবুজ মসুর ডাল, যব বা কিনুয়া যোগ করুন। আপনি ভাজা ব্রোকলি, ফুলকপি বা ব্রাসেলস স্প্রাউটের মতো অতিরিক্ত সবজিও যোগ করতে পারেন!
  • মিষ্টি কিছু যোগ করুন। শুকনো ক্র্যানবেরি, শুকনো টার্ট চেরি, বা ডালিমের বীজ এই রেসিপিতে ক্যারামেলাইজড মিষ্টি আলু এবং টক ফেটা চীজের সাথে চমৎকার একটা স্বাদ তৈরি করবে।

আপনি আপনার সালাদে কি কি উপাদান পরিবর্তন করলেন, তা আমাকে জানান। 

Untitled design 2 1 মিষ্টি আলুর সালাদ
মিষ্টি আলুর সালাদ পরিবেশনের বিভিন্ন পদ্ধতিঃ 

এই মিষ্টি আলুর সালাদ রেসিপি একটি সুস্বাদু স্বাস্থ্যকর লাঞ্চ! এটিকে এভাবেই খেতে পারেন, বা এটিকে অ্যাভোকাডো টোস্টের টুকরো, ক্রাস্টি পাউরুটি বা ঘরে তৈরি ফোকাসিয়ার সাথেও খেতে পারেন। এটি গ্রিলড চীজ স্যান্ডউইচ বা এক কাপ স্যুপ যেমন আমার টমেটো বেসিলের স্যুপ, গাজর আদা স্যুপ, ভেজিটেবল স্যুপ, বাটারনাট স্কোয়াশ স্যুপ বা মসুর ডালের স্যুপের সাথেও মুখরোচক লাগে। 

আমি সাইড ডিশ হিসাবে এই মিষ্টি আলুর সালাদ পরিবেশন করতে পছন্দ করি। এটি আপনার প্রিয় যেকোন প্রোটিন জাতীয় খাবার এর  সাথে খেতে পারেন অথবা  একটি তাজা, স্বাস্থ্যকর ডিনারের সাথেও খেতে পারেন। 

এই সালাদটি যেসব খাবারের সাথে পরিবেশন করতে পারেন:

  • স্টাফড মরিচ
  • ব্ল্যাক বিন বার্গার বা ভেজিটেবল বার্গার
  • সবজির অমলেট
  • শাকশুকা
  • বেকড ফেটা চীজ
  • ছোলা এবং চিমিচুরি চাটনির সাথে অ্যাকর্ন স্কোয়াশ

আমার আরও কিছু প্রিয় মজাদার সালাদ

আপনি যদি এই মিষ্টি আলুর সালাদ রেসিপিটি পছন্দ করেন তবে এই সালাদগুলিও বানিয়ে দেখতে পারেন:

  • গাজর আদার ড্রেসিং দিয়ে কেইল পাতার সালাদ
  • ব্রোকলি সালাদ
  • নিকোইস সালাদ
  • বাটারনাট স্কোয়াশ সালাদ
  • রোস্টেড বিট সালাদ
  • ফার্মহাউসের যবের সালাদ
  • মসুর ডালের সালাদ
  • ঘরে তৈরি সিজার সালাদ

মিষ্টি আলুর সালাদ

প্রস্তুতির সময়: ২০ মিনিট

রান্নার সময়: ২৫ মিনিট

পরিবেশন করতে পারবেনঃ ৪ জন

এই ভাজা মিষ্টি আলুর সালাদ একটি সুস্বাদু লাঞ্চ বা সাইড ডিশ! আপনি যদি এটি আগে থেকে তৈরি করে রাখেন তবে খাওয়ার আগে পর্যন্ত ড্রেসিং এবং অ্যাভোকাডো যোগ করে নিন।

উপকরণ

  • ২টি ভাজা মিষ্টি আলু (কিউব করে কাটা)
  • তাহিনী ড্রেসিং 
  • ৪ কাপ আরগুলা পাতা
  • ১/৩ কাপ কুচি করা ফেটা চীজ
  • ১টি অ্যাভোকাডো (পাতলা করে কাটা)
  • লেবুর টুকরা
  • ৩ টেবিল চামচ ভাজা মিষ্টি কুমড়ার বিচি (খোসা ছাড়ানো)
  •  রান্নার লবণ  এবং গোল মরিচ গুঁড়া (স্বাদ মতো)

নির্দেশনা

১। রেসিপি অনুযায়ী মিষ্টি আলু ভেজে নিন এবং তাহিনি ড্রেসিং তৈরি করুন।

২। একটি বড় থালা বা বাটিতে আরগুলা পাতার সাথে কিছু ড্রেসিং ছড়িয়ে, মিষ্টি আলু এবং ফেটা চীজ দিয়ে সবকিছু এক সাথে মিশিয়ে নিন। অ্যাভোকাডোর টুকরো দিয়ে একটু লেবুর রস চেপে নিন। আরও ড্রেসিং এবং পেপিটাস ছড়িয়ে দিন উপরে। স্বাদমতো লবণ ও গোলমরিচ দিয়ে পরিবেশন করুন।